ফ্রীল্যান্সিং এ কাজ পাবার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটা ব্যাপার হচ্ছে প্রোফাইল। যদি প্রোফাইল আপডেটেড এবং সম্পূর্ণ না হয় তবে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। বলা যায় সম্ভাবনা থাকেই না। আবার আকর্ষণীয় প্রোফাইল এর ক্ষেত্রে কাজ পাবার সম্ভাবনা ৭০% বেড়ে যায়। তাই মার্কেটপ্লেসগুলোতে কাজ পেতে সবার আগে প্রোফাইল সম্পূর্ণ করুন এবং তা নিয়মিত আপডেট করুন। দেখবেন আপনার সফলতার হার অনেক বেড়ে গিয়েছে। আর প্রোফাইল সম্পূর্ণ করার সময় অবশ্যই লক্ষ্য রাখবেন নিচের ভুলগুলো যেন না হয়। যদিও এগুলোই সবচেয়ে কমন ভুল।

  •  প্রোফাইল সম্পূর্ণ করার সময় সঠিক স্কিল, প্রোফাইল ছবি এবং ডেসক্রিপশন দিন। এক্ষেত্রে আপনার যেসকল স্কিল এর উপর ভালো দক্ষতা আছে শুধু সেগুলোই যুক্ত করুন। প্রয়োজনের বেশী স্কিল যুক্ত করবেন না। আবার অনেকেই মনে করেন যতো বেশী স্কিল যুক্ত করা যায় ততোই নিজেকে প্রফেশনাল হিসেবে দেখানো যায়। এটি সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। আপনি এতোগুলো স্কিল একসাথে পারবেন এটা ক্লাইন্ট কখনোই বিশ্বাস করবে না। রিলেটেড কিছু স্কিল থাকতে পারে কিন্তু অতিরিক্ত নয়। আর প্রোফাইল ছবি হিসেবে আপনার নিজের ছবি দিতে চেষ্টা করুন। লোগো দেয়া যেতে পারে কিন্তু নিজের ছবি দেয়া সবচেয়ে ভালো। আর ডেসক্রিপশনে আপনার সম্পর্কে কিছু লিখুন। সেই সাথে আপনি কি করতে পছন্দ করেন, কিভাবে কাজ শিখছেন, কেন এই কাজ শিখছেন ইত্যাদি সংক্ষেপে লিখতে পারেন। তবে অবশ্যই একটু গুছিয়ে লিখবেন। বেশীরভাগ ক্লাইন্ট কিন্তু এই লিখা পড়েই কাজের জন্য ফ্রীল্যান্সার হায়ার করে।

 

  • দীর্ঘদিন আগের লিখা বা প্রস্তুত করা প্রোফাইল দিয়েই এখনো কাজ নেয়ার চেষ্টা করছেন? সময়ের সাথে সাথেতো মানুষের পরিবর্তন হয়। প্রোফাইল এর পরিবর্তন কেন হবে না? নিয়মিত প্রোফাইল আপডেট করুন। নতুন শিখে নেয়া স্কিল যুক্ত করুন। সর্বশেষ করা কাজগুলোর বর্ণনা যুক্ত করুন। প্রোফাইল এর ছবি পরিবর্তন করুন। এতে নতুন ক্লাইন্ট আপনার সম্পর্কে আরো জানতে পারবে এবং সহজেই হায়ার করতে পারবে।

 

  • আপনি যা পারেন না বা যে বিষয়ে আপনার দক্ষতা কম কিন্তু আপনার প্রধান স্কিল এর সাথেই রিলেটেড, তা অবশ্যই প্রোফাইল এ উল্লেখ  করবেন। কেনোনা অনেকসময় অনেক কাজে যে বিষয়ের কাজ নিয়ে কথা হয় তার বাইরেও কিছু কাজ থাকতে পারে যা জানা না থাকলে আপনার ক্ষতি হয়ে আসতে পারে। যেমন ধরুন আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইনের কাজ করেন। এখন আপনার অবশ্যই সবধরনের হোস্টিং সম্পর্কে আইডিয়া থাকতে হবে। এখন আপনি যদি উইন্ডোজ সার্ভার এর কাজ না জানেন এবং ক্লাইন্টের সার্ভার যদি হয় উইন্ডোজ, তাহলে আপনি সম্পূর্ণ কাজ সম্পূর্ণ করেও এই শেষ পর্যায়ে এসে ওয়েবসাইট হোস্ট করতে গিয়ে আটকে যাবেন।

 

  • পোর্টফলিও কখনোই খালি রাখবেন না। যদি পোর্টফলিও হিসেবে দেখানোর মতো কোন কাজ আপনি করে না থাকেন তবে স্যাম্পল হিসেবে কিছু কাজ সম্পূর্ণ করুন এবং সেগুলোই পোর্টফলিও হিসেবে যুক্ত করুন। কারণ অনেক ক্লাইন্ট কাজ দেয়ার আগে আপনার পোর্টফলিও দেখতে চাইবে। আর বেশীরভাগ ক্লাইন্ট একদম নতুন কাউকে কাজ দিতে আগ্রহ বোধ করে না। কিছু স্যাম্পল পোর্টফলিও হলেও এক্ষেত্রে আপনাকে সহায়তা করবে। আর সবসময় পোর্টফলিও যুক্ত করার সময় সুন্দরভাবে উপস্থাপন করুন। এলোমেলো ভাবে সাজানো পোর্টফলিও দেখতে যেমন খারাপ লাগে, কাজ পাবার ক্ষেত্রেও তেমন ব্যাঘাত ঘটায়।

 

  • প্রোফাইল এ যতো তথ্য লিখবেন, সংরক্ষণ করার আগে তা আরেকবার চেক করে দেখবেন যে কোন গ্রামার ভুল আছে কিনা। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বেশীরভাগ ক্লাইন্ট দুর্বল গ্রামার হলে হায়ার করতে দ্বিধাবোধ করে। কেনোনা তাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ এবং কাজের ক্ষেত্রে দুর্বল গ্রামার অনেক সময় কাজে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। তাই ক্লাইন্ট সাধারণত তা চায় না। তাই লিখা শেষ হতেই কয়েকবার প্রুফ রিডিং করে নিন। ভুল থাকলে সংশোধন করে নিন। এরপর সংরক্ষণ করুন।

 

  • ক্লাইন্ট কে কখনোই বলবেন না যে আমি চেষ্টা করে দেখব বা হয়তো পারবো। বরং তাকে সাহস দিন যে তার কাজ আপনি সম্পূর্ণ করে দিবেন। এতেই ক্লাইন্ট ভরসা পাবে এবং হায়ার করতে আগ্রহী হবে। নয়তো সে অবশ্যই দুর্বল কাউকে হায়ার করে তার সময় নষ্ট করতে চাইবে না। তাই সবসময় নিজের উপর ভরসা রাখুন। কাজ শেষ করার সর্বাত্মক চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে অন্য কারো সহায়তা নিতে পারেন। তবে কাজটি যদি আপনার স্কিল এর হয়ে থাকে তবে অবশ্যই আপনি নিজেই পারবেন।

 

  • নতুন কাজ নিচ্ছেন? তাই অল্প চার্জ করতে চাচ্ছেন যাতে ক্লাইন্ট অর্থ বাঁচাতে আপনাকে হায়ার করে? এমন ভুল কখনোই করবেন না। কেনোনা বেশীরভাগ ক্লাইন্ট মনে করে এক্সপার্টরা সবসময় তাদের সঠিক মূল্য অনুসারেই চার্জ করবে। সেই সাথে তারা তাদের কাজের জন্য সঠিক লোক সঠিক অর্থের বিনিময়েই হায়ার করবে। অল্প পরিমানের পেমেন্ট সেখানে একটি বড় ভুল। কাজ এর জন্য সঠিক পরিমাণ চার্জ করুন। হায়ার হবেন।

 

  • আমি নাকি আমরা? যদি আপনি একাই কাজ করেন তবে আপনি কেন “আমরা” ব্যবহার করবেন? আবার কোম্পানি বা টিম হলেও ক্লাইন্টের সাথে আপনি কথা বলছেন। আপনি কেন “আমরা” ব্যবহার করবেন? ক্লাইন্ট আপনার কথা শুনতে চায়। আপনাদের না। তাই সবসময় লক্ষ্য করুন কভার লেটার বা চ্যাট এ আপনি কি লিখছেন বা বলছেন।

Leave a Reply