অনেকেই ছবি তুলতে পছন্দ করেন। শখের বশেই প্রতিনিয়তই ক্যামেরায় (Camera) ক্লিক করে যেতে থাকেন এবং অনেক অসাধারণ মুহূর্তগুলো ক্যামেরায় বন্দী করেন।  যদিও এতে অনেক সময় ও শ্রম দিতে হয় কিন্তু এর থেকে তেমন একটা আর্থিক লাভবান (Earning) হওয়ার সুযোগ পান না। শুধু শখেই এই কাজটি করে থাকেন। কিন্তু যদি বলা হয় এর থেকেও আপনি চাইলে আয় করতে পারেন? কি বিশ্বাস হচ্ছে না?

 

অনলাইনে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ কপি ছবি বিক্রি হয়। আসলে ছবিটি নয়। ছবিটি ব্যবহার করার অনুমতি (Usage Right) বিক্রি হয়। অর্থাৎ আপনি যদি আপনার তোলা কোন ছবি বিক্রয় করতে দেন তবে যে কিনবে সে আসলে তার প্রয়োজন মতো ছবিটি ব্যবহার করার অনুমতি পাচ্ছে। ফলে সেই একই ছবি অনেকেই কিনতে অর্থাৎ ব্যবহার করার জন্য নিতে পারছে। ব্যাপারটি একটু তাহলে খুলেই বলি।

 

আমার একটি ওয়েবসাইট আছে ফুড লাইফ (Food Life) নামের। এখানে আমি যদি প্রতিদিন ১০ টি পোস্ট করতে চাই তবে সেই পোস্ট এর সাথে অবশ্যই আমাকে কমপক্ষে ১০ টি ছবি আপলোড করতে হবে। এবং অবশ্যই পোস্ট এর সাথে মিল রেখে। ছবি ছাড়া বা বেমানান ছবি ব্যবহার করলে অবশ্যই আমার ওয়েবসাইট এর মান কমে আসবে তাই আমার কাছে ছবি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এখন কথা হচ্ছে এতো ছবি কোথায় পাওয়া যাবে? এখানেই হচ্ছে অনলাইন ফটো স্টক মার্কেট (Photo Stock Market) এর কাজ। আমাকে শুধু সেখান থেকে আমার প্রয়োজন মতো ছবি বাছাই করে কিনে নিতে হবে। আর ছবিগুলো কোন না কোন শখের ফটোগ্রাফারই (Photographer) তুলেছেন।

Photographer

স্টক ফটোগ্রাফি মার্কেট কিভাবে কাজ করেঃ ব্যাপারটি খুবই সাধারণ। যদি আপনি ফটোগ্রাফার হয়ে থাকেন এবং আপনার তোলা ভালো মানের ছবি থাকে যা আপনি বিক্রয় করতে চান তা বাছাই করুন। এবার যেকোন স্টক মার্কেট (Stock Market) এ আপনার তোলা ছবি আপলোড করুন। মানানসই টাইটেল (Title), ছবির ধরণ অনুযায়ী ক্যাটাগরি (Category), ট্যাগ (Tag) ইত্যাদি ব্যবহার করে ছবিটি পাবলিশ (Publish) করুন। আপনার কাজ মোটামুটি শেষ। এবার স্টক মার্কেট ছবিটির গুরুত্ব অনুযায়ী ক্রেতাদের দেখাতে থাকবে এবং বিক্রয় করতে থাকবে। যত কপি বিক্রয় হবে আপনি তার বিপরীতে একটি অর্থ পাবেন। অবশ্যই তারা সেখান থেকে তাদের লাভের অংশ রেখে দিবে। এবং এতে ছবিগুলোর জন্য মার্কেটিং করা এবং অর্থ লেনদেন এর যাবতীয় চার্জ যুক্ত থাকবে।

 

কি ধরণের ছবি বিক্রয় করা যায়ঃ আসলে এর কোন নির্দিষ্ট ধরণ (Type) নেই। প্রায় সব ধরণের ছবিই এখানে বিক্রয় করা যায়। শুধু ছবির মান ভালো হতে হবে। আপনি প্রকৃতির (Nature) ছবি তুলতে পারেন, খাবারের (Food) ছবি তুলতে পারেন, আকাশের ছবি তুলতে পারেন, পশুপাখির (Birds and Animals) ছবি তুলতে পারেন আবার চাইলে কাউকে মডেল (Artist/Model) বানিয়ে তার ছবিও তুলতে পারেন। তবে কোন মানুষের ছবি হলে অর্থাৎ মডেল হিসেবে কেউ থাকলে তার একটি অনুমতি পত্র (Agreement) প্রয়োজন হবে। অর্থাৎ তার ছবিটি সে ব্যবহারের অনুমতি দিচ্ছে সেরকম একটি এগ্রিমেন্ট। তবে এই এগ্রিমেন্ট এর কপি ফটো স্টক মার্কেটগুলোই দিবে। আপনাকে শুধু সঠিকভাবে পূরণ করে দিতে হবে। আর যেকোন কিছুর ছবি তোলা যাবে মানে এই নয় যে ব্যবহারের অযোগ্য বা কাজে আসবে না এমন ছবি তুলেও বিক্রয় করা যাবে। যেহেতু কারো প্রয়োজন এর জন্যই কেউ ছবি কিনবে সেহেতু তাদের কাজে আসবে এমন ছবিই দরকার। আপনি নমুনা হিসেবে স্টক মার্কেটগুলোতে ঘুরে দেখতে পারেন। সবচেয়ে ভালো হয় টপ সেল হওয়া ছবিগুলো দেখলে। এতে আপনি কোয়ালিটি, ধরণ, মার্কেট চাহিদা ইত্যাদি বুঝতে পারবেন।

 

কিভাবে সফল হবেনঃ আসলে প্রথম ছবি বিক্রয় করতে নামলে অবশ্যই আপনি সাথে সাথে সফলতা পাবেন না। কেননা বেশীরভাগ ক্রেতা টপ সেলার এর দিকেই বেশি নজর দেয়। এক্ষেত্রে আপনি যদি নতুন হয়ে থাকেন তবে আপনাকে একটু কষ্ট করতেই হবে। নিয়মিত ছবি আপলোড করতে থাকা, ভালো মানের কিছু ছবি বিনামূল্যে ব্যবহারের অনুমতি দেয়া, নিজের পোর্টফলিও ওয়েবসাইট বা ব্লগ ব্যবহার করে মার্কেটিং করা ইত্যাদি এর মাধ্যমে আপনি হয়তোবা আপনার ছবি বিক্রয়ের পরিমাণ বাড়াতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনাকে ভালোই কষ্ট করতে হবে। তবে সফল হতে হলে কষ্ট করতেই হয় এবং সেই সাথে লেগে থাকতে হয়।

 

কিছু ফটোস্টক মার্কেটপ্লেস সমূহঃ

 

স্যাম্পল ছবি দেখতে চাইলে ভিজিট করুনঃ Royalty Free Photo Example

স্মার্টফোন দিয়ে কিভাবে ছবি তুলে আয় করা যায় সে সম্পর্কে জানতে দেখুনঃ স্মার্টফোনে ছবি তুলে আয়

Leave a Reply