আপনার যদি কোন কাজের স্কিল থেকে থাকে তাহলে ফ্রীল্যান্সিং করে আপনি প্রচুর অর্থ আয় করতে পারবেন। তবে ফ্রীল্যান্সিং সোনার হরিণেরর সঠিক প্রয়োগ না করতে জানলে আপনার অর্থ প্রাপ্তি অধরাই থেকে যাবে। ফ্রীল্যান্সিং করতে হলে আপনাকে অবশ্যই কিছু বিশেষ দিক খেয়াল রাখতে হবে। অনেকেই আছেন যারা ফ্রীল্যান্সিং করতে চাচ্ছেন বা করছেন কিন্তু আশা-অনুরুপ ফল পাচ্ছেন না। তাঁদের জন্য ফ্রীল্যান্স হেল্পলাইনে আজকে কিছু টিপস দেয়া হল।

আপনি যদি ফ্রীল্যান্সিং করে অর্থ আয় করতে চান তাহলে আপনাকে যা যা করতে হবেঃ

  • প্রচুর প্রোজেক্টে বিড করুণঃ আপনি যত বেশী বিড করবেন তত বেশী কাজ পাবার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। এটা ঠিক আপনি এক সাথে সব কাজ করতে পারবেন না তবে আপনি এ ক্ষেত্রে ওই সব কাজ আগে করবেন যে সব কাজে টাকা বেশী। আপনি যদি সঠিক ও বেশী দামের কাজ না পান তাহলে আপনার বিড করা চালিয়ে যান। এভাবে চালিয়ে গেলে আপনার কাজ পাবার সম্ভাবনাও বাড়বে সাথে ভালো মূল্যের কাজও বেছে নিতে পারবেন।

 

  • প্রোফাইলে আপনার জানা কাজের স্কিল সংযুক্ত করুণঃ ফ্রীল্যান্সিং জগতে কাজ করা যথেষ্ট প্রতিযোগিতা মূলক। এখানে ক্লায়েন্ট চায় ভালো স্কিলের এমপ্লয়ী। যার স্কিল যত ভালো তাঁর কাজ পাবার সম্ভাবনাও ততো বেশী। সুতরাং আপনার স্কিল বাড়ান। (যদি আপনার কাজ জানা থাকে না জানলে সংশ্লিষ্ট কাজ শিখে নিতে পারেন।)

 

  • ফ্রীল্যান্সিং এর জন্য বেশী বেশী সময় রাখুনঃ আপনি বেশী টাকা আয় করতে চাইলে অবশ্যই আপনাকে বেশী সময় ব্যায় করতে হবে। আপনি যদি দৈনিক ৫ ঘন্টা ফ্রীল্যান্সিং করতে রাখেন একবার ভেবে দেখুন অন্য আরেকজন ১০ ঘন্টা ব্যায় করে আপনার থেকে স্বাভাবিকভাবে বেশী অর্থ আয় করবে। তাই আপনার আয় সর্বচ্চো করতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই সময় দিতেই হবে।

 

  • ক্লায়েন্টের সাথে সম্পর্ক সাবধানতার সাথে বজায় রাখুনঃ ক্লায়েন্টের সাথে সু-সম্পর্ক ফ্রীল্যান্সিং এ অর্থ আয়ের সম্ভাবনা বহুগুন বাড়িয়ে দেয়। কারণ আপনি যদি আপনার ক্লায়েন্টের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে ঠিক ঠাক ভাবে কাজ করে যান তাহলে ওই ক্লায়েন্ট তাঁর পরবর্তী কাজের জন্য আপনাকে অফার করবে এ ক্ষেত্রে বিড করে কাজ পেতে হচ্ছেনা আপনাকে কাজ আপনার হাতের কাছেই থাকছে।

 

  • একটি গ্রুপ বা দল তৈরি করুণঃ এটা এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনি আপনার ফ্রীল্যান্সিং কাজ থেকে অর্থ আয় অনেক বেশী করতে পারেন। এ পদ্ধতিতে আপনি আপনার ক্লায়েন্ট থেকে কাজ নিয়ে আপনার দলের সবার মাঝে ভাগ করে দিতে পারেন, কাজ শেষে কাজটি আপনার ক্লায়েন্টকে বুঝিয়ে দিতে পারেন। এতে আপনার সময় ও কাজ বেশী করার সম্ভাবনা বেড়ে গেলো।

Leave a Reply