ফ্রীল্যান্সিং শিখতে চাচ্ছেন? শুরু করবেন কিভাবে তা নিয়ে অনিশ্চিত? ভাবছেন কিভাবে কোথায় শুরু করবেন এবং কোথায় ট্রেনিং নিলে ভালো শিখতে পারবেন? তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্যই। কারণ ফ্রীল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে চাইলে আগেই আপনার কিছু বিষয় জেনে নেয়া উচিৎ আর সেগুলোকে নিয়েই আজকের এই পোস্ট। যা হয়তোবা আপনার যাত্রা শুরুতে সবচেয়ে বেশী কাজে আসবে। কেননা এখানে ট্রেনিং নেয়ার বিষয়ের পাশাপাশি আপনার আরো কিছু প্রশ্নের উত্তর দেয়া হয়েছে যা হয়তোবা আপনি মনে মনেই ভাবছেন।

তাহলে শুরু করা যাক। শুরু করার আগেই প্রথমেই জেনে নেয়া যাক আপনি কোন বিষয়ের উপর কাজ শিখতে চাচ্ছেন? এখনো ঠিক করেননি? ট্রেনিং নেয়ার জন্য যেখানে যাবেন সেখানে গিয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন? তাহলে আপনি ভুল ভাবেই এগিয়ে যাচ্ছেন। আসলেই।

 

১. কোন বিষয়ে কাজ শিখবেন?

ফ্রীল্যান্সার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে চাইলে আগে জেনে নিন আপনি কোন বিষয়ের উপর কাজ শিখতে চান। এক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয়ের উপর গুরুত্ব দেয়া জরুরী। প্রথমত কোন কাজটি আপনার ভালো লাগে। কেননা প্রায় সব ধরণের বিষয়ের উপরেই কাজ শিখে ফ্রীল্যান্সার হিসেবে নিজেকে দাড় করানো সম্ভব। আর যদি সেই বিষয়ের আপনার আগ্রহ কম থাকে তাহলে আপনি ফ্রীল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে গিয়েও বিভিন্ন বাঁধার সম্মুখীন হবেন। যেমন আপনার কাজ করতে ভালো না লাগা, নিজেকে সেই বিষয়ের সাথে তাল মিলিয়ে নিতে সমস্যা এবং সময়ের সাথে নিজেকে আপডেট রাখা ইত্যাদি। যার ফলে আপনার সফল হয়ে উঠার সম্ভাবনা কমে আসবে। তাই আগে নিজেকে যাচাই করুন। বুঝতে চেষ্টা করুন আপনি কি বিষয়ের উপর মানিয়ে নিতে পারবেন, কোন বিষয় আপনার কাছে ভালো লাগে এবং আপনিও শিখতে চান। হতে পারে ছবি তোলা বা ভিডিও এডিটিং বা ভিডিও গেইম খেলা অথবা ওয়েবসাইট এর খুঁটিনাটি নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করতে থাকা এবং এটাও হতে পারে যে মোবাইলের অ্যাপ্লিকেশান আপনার বেশী ভালো লাগে। আর যেটা বেশী ভালো লাগে সেটা নিয়েই প্রথমেই ইন্টারনেট এ ঘাঁটাঘাঁটি করুন। দেখুন কিভাবে সেগুলো নিয়ে কাজ করা যায়, কিভাবে এর থেকে আয়ও করা যায় এবং আসলেই এর সাথে নিজেকে মানানো যায় কিনা। যদি মনে করেন আপনি এই বিষয়ের উপরেই পারবেন এবং আপনারও ভালো লাগে এবং পর্যাপ্ত তথ্য এখন আপনি জানেন তাহলে এবার চলে যান দ্বিতীয় পদক্ষেপে।

 

২. কোথায় ট্রেনিং নিবেন?

ট্রেনিং নেয়ার ব্যাপারটি একটু কঠিনই বটে। তবে আমার দৃষ্টিতে। শুরুতেই খুঁজে দেখুন আপনি যে বিষয়ের উপর কাজ শিখতে চাচ্ছেন সেসকল বিষয়ের উপর কোন কোন ট্রেনিং সেন্টার কাজ শিখাচ্ছে। সেই সাথে খোঁজ নিন তাদের ভিতর কারা কারা সফলভাবে কাজ শিখিয়ে যাচ্ছে। তাদের কাজ শিখানোর মান কেমন এবং আসলেই তারা ভালোভাবে শিখাতে পারছে কিনা। যদি ফীডব্যাক ভালো থাকে তবে সেখানেই ট্রাই করতে পারেন। যদিও আপনার আশেপাশেই হয়তোবা অনেক ট্রেনিং সেন্টার রয়েছে এবং ফ্রীল্যান্সিং শিখুন এরকম পোস্টার সবসময়েই দেখেন তবুও এদের থেকে দূরে থাকাই ভালো। কারণ আপনি ফ্রীল্যান্সিং নয় আসলে কাজ শিখবেন। দুইটি ভিন্ন বিষয়। আর অনেকেই দূরে কোথাও যেতে চান না। কিন্তু যদি দূরে কোথাও ভালোভাবে ফ্রীল্যান্সিং শিখার সুযোগ থাকে সেক্ষেত্রে চেষ্টা করা উচিৎ সেখানেই যাওয়ার। আর কোথাও যদি শিখতে ভর্তি হয়ে যান, চেষ্টা করুন ভালোভাবেই শিখার জন্য। এজন্য নিয়মিত ক্লাস করা, যা বুঝতে পারবেন না তা জানতে চাওয়া, নিজের মতামত শেয়ার করা বা প্রশ্ন করে বিকল্প উপায় সম্পর্কে জানতে চাওয়া ইত্যাদি। আপনি যত বেশী জানতে পারবেন, শিখতে পারবেন ততো বেশী আপনার সফল হবার চান্স বৃদ্ধি পাবে। সেই সাথে যদি কোথাও ইন্টার্নই করার সুযোগ পান, তবে সেখানেও লেগে থাকতে চেষ্টা করুন। কারণ হয়তোবা সেখানেও আরো অনেক কিছু শিখতে পারবেন। যা আপনাকে দক্ষ করে তুলতে পারবে।

 

৩. দক্ষ থেকে দক্ষতর হয়ে উঠার উপায়

যদি আপনি উপরের দুই স্টেপ পার করে এসে থাকেন এবং ভাবতে থাকেন এখন আপনি দক্ষ তাহলে সেটা অবশ্যই আপনার ভুল ধারণা হবে। কেননা শুধু দক্ষ হলেই আপনার সফল হওয়ার চান্স যেমন বাড়বে না তেমন আপনি যা শিখেছেন তাও আসলে পর্যাপ্ত না। কথাটি একটু বেশী পেঁচালো হলেও এখনি এর কারণও বুঝতে পারবেন। মূলত ফ্রীল্যান্সার হিসেবে তাদেরকেই ক্লাইন্ট বেশী পছন্দ করেন যারা কাজটি শুধু করে দিবে তা নয়, করে দেয়ার পর ক্লাইন্ট আর কোন সমস্যা খুঁজে পাবে না। কারণ আপনি আগে থেকেই সেসকল সমস্যা বুঝে যেতে পারবেন এবং সমাধান করতে পারবেন। ক্লাইন্ট এর থেকে সমস্যা জানতে হবে না। আর এরকম কাজ শুধু তখনই হয় যখন কেউ নিজের অভিজ্ঞতা থেকে সকল প্রকার সমস্যা আগেই সমাধান করতে পারবে। এখন যদি আপনি মাত্র কাজ শিখে ফ্রীল্যান্সিং করার জন্য আসেন তাহলে আপনার কি পর্যাপ্ত অভিজ্ঞতা থাকার সুযোগ রয়েছে? অবশ্যই না। তাহলে কিভাবে এই অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবেন সেটাই আসল বিষয়। অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য আমরা কয়েকটি সাজেশন দিতে পারি। সেগুলো হচ্ছেঃ

 

অভিজ্ঞতা অর্জন

  • কাজ শিখতে শুরু করার সময় থেকেই প্র্যাকটিস করতে থাকুন। যত বেশী পারবেন ডেমো তৈরি করুন এবং কাজ শিখার সময় যা দেখানো হবে তা বারবার প্র্যাকটিস করুন। এই সময় যদি কোন ভুল খুঁজে পান বা নতুন কোন আইডিয়া পান সেটাও চেষ্টা করুন সমাধান করতে বা তৈরি করতে। এভাবেই যত বেশী চেষ্টা করবেন, ততোই অভিজ্ঞতা বাড়বে।
  • আপনার তৈরি করা ডেমো বিভিন্ন ওয়েবসাইট এ আপলোড করতে পারেন যেখানে মূলত সেই বিষয় ভিত্তিক কাজ নিয়েই সকলে ফাইল বা ডিজাইন বা এরকম বিষয়বস্তু আপলোড করে থাকে সকলকে দেখানোর জন্য। যেমন ডিজাইন এর ক্ষেত্রে Deviantart হতে পারে, কোডিং এর ক্ষেত্রে Github বা এরকম ওয়েবসাইট সমূহ হতে পারে। একই সময় আপনি যদি মনে করেন আপনার কাজটি খুবই ভালো হয়েছে এবং অন্যদের কাজে আসতে পারে তাহলে মার্কেটপ্লেস এ আপলোড করতে পারেন বিক্রয়ের উদ্দেশে। এতে সেখান থেকে কিছু আয় পাওয়ায় সুযোগ তো আসবেই একই সময় অনেক ভুল বা সমস্যার সমাধানের উপায়ও খুঁজে পাবেন এবং তা আপনার অভিজ্ঞতা বাড়াতে সহায়তা করবে। কেননা ভুলগুলো সংশোধন করার সময় আপনি হয়তোবা নতুন কিছু শিখতে পারবেন।
  • আপনি যে বিষয় নিয়ে কাজ শিখতে চাচ্ছেন সে বিষয়ের উপর ভালো ভালো ফোরাম, ব্লগ ইত্যাদি খুঁজে বের করে নিয়মিত অনুসরণ করুন। হয়তোবা সেখান থেকেও আপনি কাজ শিখতে পারবেন এবং একই সাথে আপনার অভিজ্ঞতা বাড়াতে সেখানে অন্যদের সমসস্যার সমাধান দেয়ার চেষ্টা করতে পারেন। সকল বড় ফ্রীল্যান্সাররাই এই বিষয়ে সবসময় সতর্ক এবং সকলেই এরকম স্থানে অ্যাক্টিভ। আমাকেও এর ভিতর অন্তর্ভুক্ত করা যায়। ব্যক্তিগত ভাবে আমি এভাবেই কাজ শিখতে বেশী পছন্দ করি।
  • ইন্টার্নই করার সুযোগ থাকলে সেটা করেও আপনি অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারেন। ফলে একে তো আরো ভাল কাজ শিখতে পারছেন সেই সাথে দক্ষ ব্যক্তিদের সাথে থেকে কিভাবে কাজ করতে হয় বা কাজ পেতে হয় ইত্যাদিও আপনি শিখতে পারতে পারেন। যা একটি কার্যকরী পদ্ধতি।
  • যদি সুযোগ থাকে, ফ্রী কনটেন্ট তৈরি করে সেগুলো পাবলিক প্লেসে ছেড়ে দিতে পারেন। যেমন আপনি ওয়েবসাইট এর থিম ডিজাইন করার কাজ শিখে থাকলে কিছু ডিজাইন তৈরি করে সেগুলো মার্কেটপ্লেসে ছেড়ে দিতে পারেন এবং উন্মুক্তভাবে যাতে সকলে তা সহজেই ব্যবহার করতে সক্ষম হয়। এতে আপনার একটি মার্কেটিং এর কাজ হয়ে যাবে বলেই এটা জরুরী বটে। আর তাছাড়া আপনার ফ্রী কনটেন্ট ব্যবহারকারী কারো যদি আপনার কাজ বেশী ভালো লাগে তবে সে হয়তোবা তার নিজের কোন কাজের জন্যও আপনার সাথে যোগাযোগ করতে চেষ্টা করবে।

 

অতএব শুধু কি কাজ শিখতে চান তা বাছাই করে বসে না থেকে এভাবেই অগ্রসর হতে চেষ্টা করুন।  নিজেকে সফল ফ্রীল্যান্সার হিসেবে গড়ে তুলতে এগিয়ে যান। আর যেকোনো পরামর্শের জন্য আমরাতো আছি।

যেকোনো প্রশ্ন এখানে কমেন্টে অথবা আমাদের ফেসবুক গ্রুপ এ অথবা ইমেইল এ জানাতে পারেন। আমরা চেষ্টা করবো সঠিকভাবে আপনাকে সহায়তা করতে।

Leave a Reply