যেকোনো ব্লগের জীবনই হচ্ছে ভিজিটর। আর ভিজিটরের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে সবাই কোন না কোন উপায় ব্যবহার করে থাকেন। তবে বর্তমানে ভিজিটর বৃদ্ধি করতে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক। অনেকেই ফেসবুক পেইজ, গ্রুপ ইত্যাদি ব্যবহার করেই ব্লগের ভিজিটর বৃদ্ধি করছেন। একই সাথে কেউ কেউ ফেসবুকে নিয়মিত বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের মাধ্যমেও ভিজিটর বৃদ্ধি করছেন। তবে একই সাথে আরো কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করা যেতে পারে যা কার্যকরী এবং ব্লগের ভিজিটর কয়েকগুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম।

 

ফেসবুক ছাড়া ব্লগের ভিজিটর বৃদ্ধি

 

এসইওঃ এসইও (SEO) এর নাম শুনেনি এমন ব্লগার পাওয়া আসলেই কঠিন। এসইও হচ্ছে সবচেয়ে কার্যকরী একটি পদ্ধতি যা ভিজিটর বাড়াতে সবচেয়ে বেশী জনপ্রিয়। যদিও এটি দীর্ঘমেয়াদী একটি পরিকল্পনা তবে এর সার্থকতাও বেশী। আপনি যদি সঠিকভাবে নিয়মিত এসইও চর্চা করেন তবে সবসময়েই আপনি ব্লগে ভিজিটর পেতে পারেন। আর এসইও করার সময় অফ-পেইজ এসইও এর পাশাপাশি অন-পেইজ এসইওতেও নজর রাখতে হবে। এসইও নিয়ে আরো বিস্তারিত জানতে আমাদের পরবর্তী পোস্টগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখুন।

 

টুইটারঃ ফেসবুকের মতোই টুইটার একটি সোশ্যাল নেটওয়ার্ক কিন্তু ফেসবুকের সাথে এর অনেক অমিল রয়েছে। সবচেয়ে বড় অমিলটি হচ্ছে এখানে ১৪০ শব্দের বড় কিছু লিখা বা পোস্ট করা সম্ভব না। যাই শেয়ার করতে চাননা কেন তা ১৪০ শব্দের কম হতে হবে। তবে যদি আপনি এই সীমিত শব্দ ব্যবহার করেই কিছু বুঝাতে সক্ষম হয়ে যান এবং একই সাথে লিংক যুক্ত করে দিতে পারেন তবে এর ফলেই আপনার ব্লগের ভিজিটর বাড়তে পারে। তাই সীমিত শব্দে আপনার পোস্টের মূল বক্তব্য উল্লেখ করুন, হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে সার্চ এর উপযোগী করুন এবং সম্পূর্ণ পোস্ট পড়ার জন্য যাতে ব্যবহারকারীরা ব্লগে আসতে পারে সেজন্য লিংক দিয়ে দিন।

 

ফোরাম পোস্টিংঃ আপনার ব্লগের ক্যাটাগরির অনেক ফোরাম আপনি অনলাইনে সার্চ করে পেতে পারেন। সেখানে অন্যদের সাথে সেই বিষয়গুলোর উপর আলোচনা করার মাধ্যমেও আপনি আপনার ব্লগে ভিজিটর আনতে পারেন। এক্ষেত্রে আলোচনা করার সময় যদি আপনার ব্লগের কোন পোস্টের লিংক দেয়ার সুযোগ থাকে এবং যাদের উদ্দেশ্যে দিচ্ছেন তাদের যদি কাজে আসার সম্ভাবনা থাকে তবে এটা হতে পারে একটি উত্তম উপায়। তবে অবশ্যই অযাচিত লিংক শেয়ার করা বা স্পামিং করা যাবে না। আপনার ব্লগের ক্যাটাগরির সাথে মিলে এমন ফোরাম খুঁজতে শুধু সেই ক্যাটাগরির নাম এর সাথে ফোরাম যুক্ত করে দিতে পারেন যেমন freelance forum বা freelancers forum ইত্যাদি। আর এই কাজটি একই সাথে এসইওতেও কাজে আসতে পারে।

 

অন্যান্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কঃ নিয়মিত ব্লগ পোস্টগুলো সোশ্যাল নেটওয়ার্কগুলোতে শেয়ার করাও হতে পারে ভিজিটর বৃদ্ধির একটি উপায়। এক্ষেত্রে সকল মিডিয়াতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে শেয়ার করার ব্যবস্থাও করতে পারেন। আবার মাঝেমধ্যে পুরাতন পোস্টগুলোও শেয়ার করতে পারেন। আর এসকল ক্ষেত্রে যেসকল মিডিয়া সবচেয়ে ভালো হতে পারে তা হচ্ছে Google +, Pinterest, Tumblr, Instagram, StumbleUpon, LinkedIn, Digg, Reddit etc. একই সাথে সকল পোস্ট থেকে যাতে ব্যবহারকারীরা শেয়ার করতে পারে সেজন্য শেয়ার বাটন রাখতে পারেন। ফলে তাদের শেয়ার করা থেকেও আপনার ব্লগের ভিজিটর বৃদ্ধি পেতে পারে।

 

ইমেইল মার্কেটিংঃ অনেক ব্লগারই সবচেয়ে বেশী ভিজিটর পান ইমেইল মার্কেটিং থেকে। এই মাধ্যমটি কিন্তু সবচেয়ে কম খরচে করা সম্ভব এবং এর সফলতার হার আসলেই অনেক বেশী। ইমেইল মার্কেটিং এর জন্য ব্লগের ধরণের উপর ভিত্তি করে টার্গেটেড ইমেইল লিস্ট তৈরি করতে পারেন। একই সাথে ইমেইল লিস্ট এর গ্রুপও তৈরি করতে পারেন। এবং নিয়মিত নতুন ব্লগ পোস্টগুলোর মার্কেটিং করতে পারেন। আর আপনার ব্লগের নিয়মিত পাঠকদেরকেও আপনি নতুন পোস্টের কথা মনে করিয়ে দিতে পারেন। ফলে তাদের আবার ফিরে আসাও আপনার জন্য লাভজনক।

 

আরো কিছু এক্সট্রা উপায়ঃ বিভিন্ন সময় Yahoo! Answers এ প্রশ্নের উত্তর দেয়া, ব্লগ নিয়মিত Pingomatic এর মতো ওয়েবসাইটগুলোতে পিং করা, ইবুক বা যেকোনো ধরণের প্রয়োজনীয় ফাইল ফ্রীতে শেয়ার করা ইত্যাদিও ব্লগের ভিজিটর বাড়াতে সহায়তা করতে পারে যদি সঠিকভাবে তা করা যায়। তাই এই কাজগুলো করার চেষ্টাও করে দেখা যেতে পারে। একই সাথে গেস্ট পোস্টের সুযোগও গ্রহণ করা যেতে পারে। যেহেতু অনেকটা ফ্রীতেই কোন ওয়েবসাইট বা ব্লগকে আপনি কনটেন্ট দিতে চাচ্ছেন সেহেতু তাদেরও না বলার কথা থাকছে না। তবে অবশ্যই এক্ষেত্রে কোয়ালিটি কনটেন্ট না হলে রিজেক্ট হতে পারে। তবে সফল একটি গেস্টপোস্টও আপনাকে ভিজিটর বাড়াতে সহায়তা করবে। আর আপনিও আপনার ব্লগে গেস্ট ব্লগ পোস্ট অনুমোদন করতে পারেন। আর ইউটিউব বা অন্যান্য ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইটে ভিডিও শেয়ার করার মাধ্যমেও ভিজিটর বাড়ানো সম্ভব। এক্ষেত্রে ডেসক্রিপশনে বা ভিডিওতেই আপনি লিংক দিতে পারেন। একই সাথে আপনার ব্লগ পোস্টগুলোর ভিতরও লিংক তৈরি করতে পারেন যাতে ভিজিটররা এক পোস্ট থেকে অন্য পোস্ট এ চলে যেতে পারে।

 

যদিও আরো অনেক উপায় আছে যা আপনি করতে পারেন। আবার হয়তোবা আমরাও কোন পয়েন্ট মিস করতে পারি। যদি আপনার কোন মতামত থাকে তবে আমাদের জানাতে পারেন। আমরাও চেষ্টা করবো আপনার মতামত অনুসারে আপনাকেও সহায়তা করতে।

One Response

Leave a Reply