Posts From মঈন উদ্দিন আহমেদ টিপু

আপওয়ার্ক হচ্ছে বর্তমানে সবচেয়ে বড় আউটসোর্সিং মার্কেটপ্লেস। তাই সবারই ইচ্ছে থাকে এখানেই যাত্রা শুরু করতে। কিন্তু প্রথম যে বিষয়টি সমস্যার সৃষ্টি করে তা হচ্ছে কিভাবে বিড করতে হয় অর্থাৎ প্রপোজাল পাঠাতে হয়। যদিও কাজটি অনেক সহজ। তবে বিড করার আগেই

বর্তমানে প্রায় সব ক্ষেত্রেই ওয়েবসাইট এর প্রয়োজন বাড়ছে। কেননা খুব সহজেই ওয়েবসাইট ব্যবহার করে সবার সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধি করার পাশাপাশি অনলাইনে পণ্য বিক্রি, ব্যবসায়িক কাজ ইত্যাদি করা যায় খুব সহজে। তাই এজন্য দিন দিন সবার মাঝে ওয়েবসাইট এর চাহিদা বৃদ্ধি

আপনার একটি ভালো ওয়েবসাইট বা ব্লগ আছে এবং আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগে অ্যাডসেন্স এর বিজ্ঞাপনও আছে। আপনি নিয়মিত কনটেন্টও (Content) তৈরি করছেন। কিন্তু ওয়েবসাইট এ সব থাকা সত্ত্বেও শুধু ভিজিটর (Visitor/Traffic) বা ব্যবহারকারী (User) নেই। এতে আপনার ওয়েবসাইটটাই বৃথা। এবং

অ্যাডসেন্স (AdSense) থেকে আয় করতে চাইলে কোন রকম একটি ওয়েবসাইট (Website) বা ব্লগ (Blog) তৈরি করে সেখানে কনটেন্ট (Content) যোগ করে দিয়ে ভিজিটর (Visitor) পাঠাতে থাকলেই সফল হওয়া যায় না। যদি আপনার ওয়েবসাইট ব্যবহারকারীদের আকৃষ্ট করতে সক্ষম না হয় তবে

অনেকেই ছবি তুলতে পছন্দ করেন। শখের বশেই প্রতিনিয়তই ক্যামেরায় (Camera) ক্লিক করে যেতে থাকেন এবং অনেক অসাধারণ মুহূর্তগুলো ক্যামেরায় বন্দী করেন।  যদিও এতে অনেক সময় ও শ্রম দিতে হয় কিন্তু এর থেকে তেমন একটা আর্থিক লাভবান (Earning) হওয়ার সুযোগ পান

একজন সফল ফ্রীল্যান্সার (Freelancer) হতে হলে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধি করা। কেননা যারা কাজ দিচ্ছে তাদের মূলতই লক্ষ্য থাকে সঠিক ও মানসম্মতভাবে তাদের কাজটি যেনো কেউ সম্পন্ন করে দেয়। এবং অবশ্যই তার জন্যই তারা অর্থ প্রদান করছে। তাই

সাধারণ ফ্রীল্যান্স প্রোফাইল (Freelance Profile) এবং আদর্শ ফ্রীল্যান্স প্রোফাইল। এই দুই ধরণের প্রোফাইলের ভিতর অনেক পার্থক্য রয়েছে। এবং সাধারণ প্রোফাইলের তুলনায় আদর্শ প্রোফাইল তুলনামূলক বেশী পরিমাণে কাজ পেয়ে থাকে। এর যথেষ্ট কারণও রয়েছে। সাধারণ প্রোফাইলঃ সাধারণ প্রোফাইল বলতে শুধু প্রোফাইল

আমরা আগের পোস্ট থেকে জানলাম মাত্র ৫ টি ব্যাপার সঠিক ভাবে মেনে চলতে পারলে অ্যাডসেন্স (AdSense) ব্যবহার করে সফল হওয়া যায়। এখন কথা হচ্ছে কিভাবে এই সূত্রটি সঠিক ভাবে ব্যবহার করতে হবে এবং প্রতিটা পয়েন্ট এর কি কি ব্যবহার রয়েছে।

অ্যাডসেন্স (AdSense) ব্যবহার করা সহজ হলেও সফল হওয়া অনেক কঠিন বটে। আপনি যদি অ্যাডসেন্স ব্যবহার করে থাকেন তবে এতদিনে আপনি অবশ্যই তা টের পেয়েছেন। কিন্তু কথা হচ্ছে তাহলে কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করে সফল হওয়া যায়? আসলে অ্যাডসেন্স ব্যবহার করে

গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense) সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি অনলাইন আয়ের মাধ্যম। তাই অনলাইনে আয় করতে আসা প্রায় সকলেই একবার গুগল অ্যাডসেন্স নিয়ে সামনে যাওয়ার চেষ্টা করেন তবে প্রথমেই তাদের হার মানতে হয়। কারণ দেখা যায় গুগল অ্যাডসেন্স বারবারই তাদের ওয়েবসাইট বাতিল

বর্তমানে বেশীরভাগ ওয়েবসাইট ডিজাইন করা হয় ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress) সিএমএস (CMS) ব্যবহার করে। কারণ এই সিএমএসকে যেকোনোভাবে কাস্টমাইজ (Customize) করা যায়, যেকোনো ফাংশন (Function) ব্যবহার করা যায় এবং বিভিন্ন কাজের জন্য অনেক প্লাগিন (Plugin) রয়েছে যা ব্যবহার করে সহজেই একটি ওয়েবসাইট

গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense) থেকে আয় করতে সবাই চান। কিন্তু এই সোনার হরিণ বেশীরভাগ মানুষকেই কষ্ট দেয়। কেনোনা এর থেকে আয় করা একটু বেশী কষ্টকর। ফলে শুরুতেই হোঁচট খেয়ে বসে পরার ঘটনা প্রচুর ঘটে। তাই আসুন জেনে নেই অ্যাডসেন্স দিয়ে

আপনি যদি অ্যাডসেন্স (AdSense) এ নতুন অ্যাকাউন্ট করতে যান বা আপনার অ্যাকাউন্ট যদি নতুন হয় তবে অবশ্যই মাথায় রাখবেন যে আপনার পেমেন্ট এর নিরাপত্তার জন্য গুগল আপনার ঠিকানা ভেরিফাই করবে। যেহেতু গুগল (Google) পেমেন্ট করার জন্য সাধারণত চেক (Check) পাঠিয়ে থাকে

অনেকেই আপওয়ার্ক (UpWork) এ কাজ করতে গিয়ে প্রথমেই পেমেন্ট (Payment) এর নিয়ম নিয়ে সমস্যা পরেন। বুঝতে একটু ঝামেলা হয় যে আপওয়ার্ক এর পেমেন্ট কিভাবে দেয়া হয় বা কখন পাওয়া যায়। তাই এই পোস্ট এ আপওয়ার্ক এর পেমেন্ট এর নিয়মগুলোই তুলে

অ্যাডসেন্স (AdSense) থেকে ভালো আয় করতে সঠিক স্থানে (Placement) অ্যাড (Ad) বসানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেনোনা যদি অ্যাডগুলো ভিজিটররা নাই দেখে বা ক্লিক করে তাহলে আয় হবে কোথা থেকে? আর কোথায় বসালে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে তা নিয়মিত পরীক্ষা নিরিক্ষা করলেই

ওয়েবসাইট থেকে অর্থ আয়ের জন্য গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense) সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হলেও একই সাথে ভয়ংকর ও বটে। অনেক সময় সাধারণ একটু ভুলের কারণেও আপনার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড হতে পারে। আবার অনেক সময় জেনে শুনে ইচ্ছেকৃত করা কিছু কাজের

অনেকেই সঠিকভাবে ইউটিউব এ অ্যাডসেন্স (AdSense) অ্যাকাউন্ট যুক্ত করতে সমস্যায় পরে যান। ফলে অনেক সময় ইউটিউব থেকে আয়কৃত অর্থ অ্যাডসেন্স এ যুক্ত হয় না। তাই এখানে ইউটিউব এ অ্যাডসেন্স এর জন্য অ্যাপ্লাই করা থেকে অ্যাডসেন্স যুক্ত করার নিয়মগুলো আলোচনা করা

ফ্রীল্যান্সিং এ কাজ পাবার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটা ব্যাপার হচ্ছে প্রোফাইল। যদি প্রোফাইল আপডেটেড এবং সম্পূর্ণ না হয় তবে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। বলা যায় সম্ভাবনা থাকেই না। আবার আকর্ষণীয় প্রোফাইল এর ক্ষেত্রে কাজ পাবার সম্ভাবনা ৭০% বেড়ে

অনেক কথাইতো হলো। এবার চলুন আমরা অ্যাডসেন্স (AdSense) এর জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করি। যেখানে আমরা প্রচুর ভিজিটর পাবো এবং সেই সাথে অ্যাডসেন্স থেকে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয়ও করতে পারবো। তবে এ জন্য আমাদের কয়েকটি বিষয় প্রথমেই জানতে হবে। সেটা হচ্ছে

অনেকেই গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense) ব্যবহার করেন এবং সবসময় লক্ষ্য করেন যে এর থেকে আয় হচ্ছে অনেক কম। আবার বিজ্ঞাপনে ক্লিক ও হচ্ছে অনেক কম। অথবা প্রতি ক্লিক এ খুবই অল্প পরিমাণ আয় হচ্ছে। যা গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয়ের অনুপাতের