Posts From মঈন উদ্দিন আহমেদ টিপু

বর্তমানে সবার হাতেই স্মার্টফোন (Smart Phone) আছে। আছে হাই-রেজুলেশন (High-Resolution) ক্যামেরা। আর আছে ছবি তোলার শখ। তাই চাইলে আপনার এই শখকেই পুঁজি করে স্মার্টফোন দিয়েই ছবি তুলে আয় করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে আকর্ষণীয় এবং অসাধারণ বিষয়বস্তুতে ফোকাস করা ছবির চাহিদা

অনেকেই আছেন যারা গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense) থেকে আয় করা যায় জেনে কোন রকম একটি ওয়েবসাইট দাড় করিয়ে নেমে পড়েছেন অ্যাডসেন্স এ কিন্তু সবশেষে দেখছেন যে এর থেকে আয় (Income) হচ্ছে নগণ্য। বলা যায় কোন রকম অ্যাডসেন্স আপনাকে একটা অর্থ

এই পোস্টের প্রথম পর্ব পড়তে দেখুন > গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয়ঃ প্রথম পর্ব কিভাবে অ্যাডসেন্স থেকে আয় হবেঃ অনেকেই জানেন যে গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense) থেকে আয় হয় ক্লিক এর উপর। আসলে এই তথ্যটি যতোটা না সঠিক ততোটাই ভুল। ক্লিক

গুগল অ্যাডসেন্স (Google AdSense), ইন্টারনেট থেকে অর্থ আয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি উপায়। গুগল অ্যাডসেন্স আসলে কনটেন্ট ভিত্তিক বিজ্ঞাপন দেখানোর একটি মাধ্যম যেখানে পাবলিশার তার কনটেন্ট এর পাশাপাশি বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আয় করতে পারেন। এক্ষেত্রে কনটেন্ট (Content) হতে পারে ওয়েবসাইট/ব্লগ, ইউটিউব ভিডিও,

ইউটিউব থেকে আয় করা যায় তা কমবেশি সবাই জানেন। কিন্তু কিভাবে তা নিয়ে সবসময়েই প্রশ্ন থাকে। আবার অনেক সময় ভুল এবং মিথ্যে সংবাদের কারণে অনেকেই বিভ্রান্ত হয়ে থাকেন। কিন্তু কথা হচ্ছে কোনটা সঠিক এবং কোনটা ভুল? আশা করবো এই পোস্টে

অনেকেই মাঝেমধ্যে প্রশ্ন করে থাকেন ফ্রীল্যান্সার হিসেবে কি কি কাজ করা যায় বা কি কি ধরণের কাজ রয়েছে মার্কেটপ্লেসগুলোতে। চেষ্টা করবো সেগুলোই পর্যায়ক্রমে বর্ণনা করতে। আশা করি আপনাদের কাজে আসবে। এখানে প্রধানত ক্যাটাগরি অনুযায়ী কাজগুলো বর্ণনা করা হয়েছে। প্রতিটি ক্যাটাগরিতে

ইন্টারনেট এর মাধ্যমে অর্থ আয়ের ব্যাপারে অনেক বিজ্ঞাপন দেখা যায় যেখানে বলা হয় কিছু টাকা ইনভেস্ট করার ব্যাপারে। বলা হয় ইনভেস্ট করার কিছুদিন পর তার টাকা ডাবল হয়ে যাবে বা এরকম অফার। এর থেকে দূরে থাকাই সবচেয়ে ভালো। কেনোনা এরকম

অনেকেই আছেন ইন্টারনেট থেকে আয় করতে চান। এবং মাঝেমধ্যেই কাজও পেয়ে যান। কিন্তু কিছু সাধারণ ভুলের জন্যই তারা সাধারণত সেই কাজগুলোতে ফেল করেন অর্থাৎ কাজ শেষ করতে পারেন না অথবা ক্লাইন্ট (যে কাজটি দিচ্ছে) কাজটি বাতিল করে দিয়ে থাকেন। তাই

অনেকেই হয়তোবা প্রোগ্রামিং শিখতে চান। আপনাদের অনেকেরই সেই অর্থে বেশ কিছু প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ সম্পর্কে আইডিয়াও আছে। যেমন প্রোগ্রামিং ইন সি, জাভা, সি প্লাস প্লাস, পাইথন ইত্যাদি। জানতে চান এসব প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ বা ভাষা সমূহের কোনটিতে বেতন কতো হতে পারে? আজকে

কোন কাজটি শিখলে বা কোন কাজ করলে অনেক টাকা আয় করা যাবে এটা একটা প্রতিদিনের প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারো কাছেই এটা ব্যাপার না যে সে কাজটি আসলেই শিখতে পারবে বা করতে পারবে কিনা। কারণ অনেকেই ধরে নেন ফ্রীল্যান্সার হিসেবে কাজ

আপওয়ার্ক বা অন্যান্য মার্কেটপ্লেসগুলোতে নতুন জবে অ্যাপ্লাই করার সময় কভার লেটার সবচেয়ে বেশী ভূমিকা পালন করে। একটি সুন্দর, ছোট এবং মার্জিত কভার লেটার জব পেতে ৯০% পর্যন্ত সহায়তা করতে পারে। আর অনেকেই কভার লেটার লিখার সময় সাধারণ কিছু ভুল করে

বর্তমানে অনেকেই একজন সফল ফ্রীল্যান্সার হতে চায়।এ জন্য কেউ হয়তো কোন বন্ধু, বড় ভাই অথবা বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টার থেকে কাজও শিখেছেন।কাজ খুঁজছেন।কিন্তু সফল হতে পারছেন না। অথবা কেউ প্রথম থেকেই শুরু করতে যাচ্ছেন কিন্তু সে ক্ষেত্রেও সফল হতে পারছেন না।

অনেকেই আউটসোর্সিং এর উপর একটা ভ্রান্ত ধারণা নিয়ে বসে আছেন এবং এর মাধ্যমে সময় বা অর্থ অপচয় করে এখন এর থেকে দূরেও আছেন। তবে কথা হচ্ছে যা আপনি এর আগে চেষ্টা করেছেন তা কি আসলেই যুক্তিসঙ্গত ছিল? আপনি যে কাজের

ইন্টারনেট থেকে অর্থ আয়। আসলেই কি সম্ভব? উত্তর – আপনার জন্য না। যদি আপনি ভাবেন কাজ না করেইইন্টারনেট থেকে আয়করবেন তবে আপনার জন্য অবশ্যই উত্তর না। তবে যদি আপনি ভাবেন আপনি কাজ করেঅর্থ আয়করতে চান তবে অবশ্যই আপনি ইন্টারনেট থেকেওঅর্থ

অনেকেই হয়তোবা সাইটম্যাপ এর নাম শুনেছেন। বিশেষ করে যারা ওয়েবসাইট ডিজাইন বা ওয়েবসাইট ব্যবহার করেন তাদের এ নামটি পরিচিত মনে হতে পারে। তবে অনেকেই জানেন না এটা আসলে কি বা কেনই বা এর প্রয়োজন। যার ফলে অনেকেই হয়তোবা ওয়েবসাইট বানাবার

ফ্রিলেন্সিং পেশায় কিভাবে ক্লায়েন্ট পাওয়া যাবে  আপনি যখন ফ্রিলেন্সিং ক্যারিয়ার শুরু করতে যাবেন তখন আপনাকে বেশ কিছু সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে এর প্রধান হচ্ছে কাজ করার জন্য ক্লায়েন্ট খুজে পাওয়া। ফ্রিলেন্সিং এমন একটি পেশা এখানে আপনি আমার কাজ ও ক্লায়েন্ট

ফ্রিলেন্সার হিসেবে অর্থ আয়ের ৫টি ধাপ ফ্রিলেন্সিং অবশ্যই কেউ সখ করে করেনা এর প্রধান উদ্দেশ্য অর্থ আয়। আপনাকে জানতে হবে আপনি কি কি পন্থা অবলম্বন করলে একজন ভালো ফ্রিলেন্সার হতে পারবেন এবং ফ্রিলেন্সিং করে অর্থ আয় করতে পারবেন। যারা আগে

যেভাবে বুঝবেন আপনি কি ফ্রিলেন্সিং কাজ করার জন্য যোগ্য কিনা? অনেকেই আছেন যারা ফ্রিলেন্সিং কাজে  অন্যদের থেকে অনেক বেশী পারদর্শী। আপনাকে আগে জানতে হবে আপনি কি ফ্রিলেন্সিং কাজ করতে প্রস্তুত কিনা অথবা ফ্রিলেন্সিং পেশায় সংযুক্ত হতে যা যা লাগবে আপনার

ফ্রিলেন্সার হিসেবে কাজ করতে হলে সবছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে হচ্ছে ফ্রিলেন্সার প্রোফাইল। আপনার প্রোফাইল দেখেই ক্লায়েন্ট আপনাকে কাজ দিবে কিনা সেটা ঠিক করবে। অতএব কাজ শুরুকরার আগে  আপনাকে একটি আদর্শ প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। একটি আদর্শ প্রফাই তৈরি করতে হলে নিছের

ফ্রিল্যান্সিং করতে গিয়ে অনেকেই প্রতারণার ফাঁদে পড়েন। ফ্রিল্যান্সিং একটি নতুন ও অপ্রচলতি পেশা এখানে আপনার কাজ বিক্রি করবেন অনলাইনে বিনিময়ে আপনার পেমেন্ট রিসিভ করবেন অনলাইনে। কাজ করা ও পেমেন্ট রিসিভের মাঝে নানা ভাবে একজন নতুন অথবা পুরনো ফ্রিল্যান্সার প্রতারণার শিকার